নোবিপ্রবিতে শ্রেণিকক্ষ সংকট, আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা

EkattorPost Desk

আল জোবায়ের, নোবিপ্রবি

২৪ নভেম্বর ২০২২, ০৫:৩৫ পিএম


নোবিপ্রবিতে শ্রেণিকক্ষ সংকট, আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা

ছবিঃ একাত্তর পোস্ট

একাত্তর পোস্ট অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (নোবিপ্রবি) শ্রেণিকক্ষ সঙ্কট ও অডিটোরিয়াম ভবনের লিফট সমস্যার স্থায়ী সমাধানের দাবিতে আন্দোলন করেছেন আইন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। 

বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী মোহাম্মদ ইদ্রিস অডিটোরিয়াম ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন করেন তারা।

এ সময় তারা ক্লাসরুম চেয়ে নানা স্লোগান দেন। একপর্যায়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে এসে তোপের মুখে পড়েন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের চেয়ারম্যান বাদশা মিয়া ও সহকারী প্রক্টর শাহীন কাদির ভূঁইয়া। 

পরে শিক্ষার্থীরা প্রশাসনিক ভবনের সামনে গিয়ে জড়ো হয়ে আবারো আন্দোলন শুরু করেন। এ সময় ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর। তিনি আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে ক্লাসরুম সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আইন বিভাগের তিনটি ব্যাচের দেড় শতাধিক শিক্ষার্থীর জন্য শ্রেণিকক্ষ মাত্র একটি। ফলে অন্য বিভাগের শ্রেণিকক্ষে গিয়ে ক্লাস করতে হয় শিক্ষার্থীদের। এতে বিভাগটির শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে বলে জানান শিক্ষার্থীরা।

আইন বিভাগের শিক্ষার্থী ইলমা সালসাবিল নাফিসা। লিফট বন্ধ থাকার কারণে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যায় পড়েন তিনি। নানা অভিযোগ করে তিনি বলেন, আমাদের একে তো পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষ নেই। তার উপর যে একটি শ্রেণিকক্ষ আছে সেটি অডিটোরিয়াম ভবনের চারতলায়। উঁচু এই ভবনটির লিফট প্রায়ই বন্ধ অবস্থায় পড়ে থাকে। এতে বারবার উঠতে-নামতে গিয়ে সমস্যা হয় আমাদের। ক্লাস করতে গিয়ে উপরে উঠতে গিয়ে আমি অসুস্থ হয়ে পড়ি। এর আগেও আমাদের দুই শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়। 

বিভাগটির আরেক শিক্ষার্থী বলেন, আমাদের আইন বিভাগের তিনটি ব্যাচ চলমান আছে। আগামী জানুয়ারিতে আরেকটি ব্যাচের ক্লাস শুরু হবে। কিন্তু আমাদের ক্লাসরুম মাত্র একটি। এর ফলে আমাদের শিক্ষা কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। আমদের বিভিন্ন ভবনে বিভিন্ন বিভাগের ক্লাসরুমে ঘুরে ঘুরে ক্লাস করতে হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ক্লাসরুম খালি না থাকায় আমাদের আবার ফেরত এসে অন্য একটা ভবনে যেতে হয়। তার উপর বিভিন্ন ভবনের লিফটও বন্ধ থাকে। আজকে আমাদের ব্যাচের দুইজন বন্ধু দুটি ভবনে বারবার আসা যাওয়া করায় মাথা ঘুরে পড়ে যায়। তাই আমরা লিফট চালু করা এবং আইন বিভাগের ক্লাসরুম বরাদ্দের জন্য অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছি। 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাসরুম সংকট রয়েছে। জটিলতার কারণে নতুন একটি একাডেমিক ভবন হতে একটু দেরি হচ্ছে। এটি হয়ে গেলে সব সমস্যার সমাধান হবে। আমরা চেষ্টা করছি দ্রুত সমস্যা সমাধান করার। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, মক ট্রায়ালের জন্য আইন বিভাগকে একটি ক্লাসরুম এই মাসের মধ্যে দেয়া হবে এবং ডিসেম্বরের শেষে নতুন শ্রেণিকক্ষ দেয়া হবে।

Link copied